অরুণ পাঠক-এর কবিতা

মাথায় মুকুট পরে

মাথায় মুকুট পরে তোমার জন্য রক্ত আনছি

এই স্বচ্ছ রক্তাল্প শিকড়ে কিভাবে বাঁচবে তুমি

তোমার অনুজ ধান, গান, গর্ভ, বিদ্যুৎ-সেনানী

সুখের সমান দূরে জন্ম নিচ্ছে কাঁটার প্রশ্বাসে

ধ্বনিত জলের পাশে সমতল আলোর মৃত্যুকে স্পর্শ করে

যে জীবন শ্বাস নেয় তার আবার সিনেমা-নন্দন

কায়াহীন মাটিই তো, উদ্ভিদের, মানুষের

সত্যের সর্বাংশ তাতে প্রখরতা আনে সাহসের

তোমার ফ্যাকাশে মুখ মাটি থেকে কতটা পৃথক

চেতনার এই মর্ম শরীরে জড়াও আর দেখো

শক্তির সংঘের নীচে

শক্তির সংঘের নীচে এই জলাশয়, এর জল

পান করে মেঘের বাড়িতে শুতে যাচ্ছি আমি

তুমি সত্যের কাঁথাটি থেকে সূচ তুলে

এইমাত্র শক্তিকে ঘুম পাড়িয়ে দিলে

সংঘের নাম অনেক প্রকার অরুণযুক্ত হয়

আমি তাদের নিজস্ব প্রকোষ্ঠে না-ঢুকে

তোমার সূচের সততা ভাবছি আর শরীর থেকে

খসে পড়ছে মিথ্যার শ্যাওলা জন্মগত ভোরে

পানের অযোগ্য কথা, বলার অযোগ্য জলে

বৃষ্টির যৌনসংগীত এল চোখে, ঝড়ের শয্যায়

Facebook Comments
Advertisements

Leave a Reply