কাজল সেন-এর কবিতা

প্রতীক্ষা

তাঁর আসার কথা ছিল আজ মধ্য দুপুরে

দুপুর পেরিয়ে এখন বিকেল

তিনি আসেননি

তিনি কবে আসবেন কিছু জানাননি

আমি জানি এভাবেই হয়তো অতিক্রান্ত হবে আরও কিছুদিন

একটা দিনের সঙ্গে আর একটা দিন জুড়ে অনেকদিন

যদিও এরই মাঝে একদিন নূপুর আসবে তার বিয়ের আমন্ত্রণপত্র সমেত

জয়দ্রথ এসে জানাবে তার নতুন কর্মপ্রাপ্তির আনন্দসংবাদ

সঞ্চয়িতা খুবই নিস্পৃহ গলায় জানাবে

অরূপের সঙ্গে তার পুনর্মিলন ভেস্তে যাওয়ার বিসংবাদ

আমার অবশ্য কোথাও যাবার কথা নেই

আমি শুধু অপেক্ষায় আছি তাঁর

তাঁর আসার কথা ছিল আজ মধ্য দুপুরে

তিনি আসেননি

তিনি কবে আসবেন কিছু জানাননি

আমার জন্য পানিফল নিয়ে আসার কথা ছিল তাঁর

সম্ভবত এ জীবনে আর পানিফল খাওয়া হবে না আমার

যখন চাঁদ উঠেছিল

যখন চাঁদ উঠেছিল ফুল ফুটেছিল

কদমতলায় কেউ ছিল না

গাছেদের ছায়ারা শুধু অলস হাতে তুলেছিল

সুগন্ধী বকুল

এ কেমন গন্ধ এ কেমন ফুল

কাছাকাছি শিমুল গাছে তখন জমেছিল মৌ

আসলে এ সবই কথার কথা

কথার ছলে রূপকথা

না হলে যখন ধানক্ষেতে সূর্যস্নান সেরে

গমক্ষেতে উড়ে যাচ্ছিল একলা শালিখ

পশ্চিমি ঝঞ্ঝা একটু একটু করে পরিবর্তিত হচ্ছিল পূর্ব ঝঞ্ঝায়

গোল্লাছুট খেলতে খেলতে গোল্লায় যাচ্ছিল দাদু দিদিমারা

বিমানবন্দর তখনও ঠিকঠাক গড়ে ওঠেনি

রানওয়ে হয়নি পাকাপোক্ত

সদাশয় মহাশয়রা গা ঝাড়া দিতেই ব্যস্ত

আর ঠিক তখনই নিরাপত্তারক্ষীদের চোখ এড়িয়ে

বহুতল আবাসনে ঢুকে পড়েছিল

নীলাভ পর্বতারোহীদের রুকস্যাক

Facebook Comments

3 thoughts on “কাজল সেন-এর কবিতা Leave a comment

  1. খু্ব ভাল পড়তে । পড়তে ইচ্ছে হয় । সহজ সরল গভীর অনিবার্য ।

Leave a Reply