সুকৃতি সিকদার-এর কবিতা

লেখা

নিজেকে সংযত করা ছাড়া গতি নেই,

অগতিই শেষমেশ গতিময় করে তোলে জল।

তুমি নড়ে ওঠো,ভালোবাসার আপেল

সেও নড়ে,অতল মহিমা নিয়ে ভেসে থাকে নদী,,,

যেন দীর্ঘ অজগর সাপ এক আদুরে প্রদীপ

মিষ্টি মিষ্টি করে দিচ্ছে পুড়িয়ে আমায়

আর আমি পুড়ে যাচ্ছি জুয়াড়ির মতো

প্রতিরোজ,ভালো একটা কবিতা লেখার আশায়।

বিনয়দার উঠোন

আমাদের পাশে এসে বসলো একটা লোক।

লোক না, যুবক বলা যায় তাকে; সঙ্গে যার

একটা যুবতী ছিলো আর তারা

খুব বেশি বক বক করতে করতে ঢুকে গেলো

অরুণ কুমার দত্ত নামে এক কবির ছবিতে।

আসলে ও আমাদেরই বন্ধু, অশোকনগর থেকে আসতো, কখনও সঙ্গে  আর্য কখনও বা ঋষি।

আসলে যে কে কার সাথে আসতো জানি না।

তারা এলে আমরা বিনয়দার বাড়িতে যেতাম;

বিনয়দার উঠোনে বসে কেউ কেউ

নরম ঘাসের বিছানায় গড়াগড়ি দিয়ে নিতো,

হয়তো তাদের পুরো মনে নেই তবু

আমরা অপেক্ষা করতাম,বিনয়দা

ঘর থেকে বেরোয় কখন…

Facebook Comments

Leave a Reply