‘অপরজন’-এর মেল বক্স : সুবীর দত্ত-এর চিঠি

প্রিয় সম্পাদক

অপরজন পত্রিকা

অপরজন পত্রিকা বর্তমান সময়ে একটি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য পত্রিকা। এই পত্রিকার মধ্য দিয়ে যেভাবে বাস্তবিকতা পর্যাপ্ত প্রাসঙ্গিকতা উঠে আসে বা আসছে প্রত্যেক সংখ্যার মধ্য দিয়ে তা এই জানুয়ারির সংখ্যাটিতেও হতাশ করেনি। আমি অপরজন পত্রিকার একজন নিয়মিত পাঠক এবং অনুসরণকারী।

অপরজনের লেখককুল নিয়ে বলতে গেলে বলা যেতে পারে যথেষ্ট স্পর্ধা রাখে অপরজন, তার নিজস্বতাকে নতুন আঙ্গিকে রূপদান করার রূপকারে; এটি আমার কাছে অত্যন্ত গুরুত্ববহ। অস্তনির্জন দত্তের লেখা ‘হাঁসেদের কবিতা’, ইন্দ্রনীল ঘোষের ‘রিক্সা’, ‘সিনেমা’ এইসময়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে।  অত্রি ভট্টাচার্যের ‘বন্যা’ আমাকে অন্যরকমভাবে স্বাদ দিয়েছে। প্রত্যেক লেখকই সম্মানযোগ্য ; আলাদা আলাদাভাবে কাউকেই যদিও মাপা যায়না, তারমধ্যেও কোথাও যেন ভাবনাকে গুরুত্বসম্পন্ন মনে হয়েছে এই কাজগুলো। আমি যদিও ব্যক্তিগতভাবে কবিতাপ্রেমী বলেই কিনা এটা, জানা নেই!

অর্ক চট্টোপাধ্যায়ের ‘মার্কসবাদ ও উত্তরাধুনিকতা’ আমার সামনে একটা একটা সরল ছবি তুলে ধরেছে। ‘জাহাঙ্গীরকে লেখা কবিতা: একটি মিনি সমালোচনা’ অর্ঘ্য বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে করেছেন, তা বেশ গুরুত্ববহ মনে হয়েছে।

সব মিলিয়ে বর্তমান সময়কে যেভাবে ভেঙে ভেঙে একটি বায়স্কোপ নির্মাণের দিকে ‘অপরজন’ তার সবটা দিয়ে এগিয়ে নিয়ে চলেছে তার বহরি অনেক উপাদেয়। আমি একজন পাঠক হিসেবে ‘অপরজনের’ আগামী আরও সাফল্য কামনা করি, আরও সমৃদ্ধিশালী হোক, কামনা করি। অপরজন আরও মধ্যমণি হয়ে উঠুক পাঠকের। হয়ে উঠুক, সময়ের বৈঠা। যা প্রত্যেক পাঠক তার নিজের মত করে হাল হয়ে এগিয়ে নিয়ে যাবে। আমি, ‘অপরজনের’ অনেক সাফল্য কামনা করি।

শুভেচ্ছাসহ,

সুবীর দত্ত

কাঁকুড়গাছি, কলকাতা।

ফেব্রুয়ারি ২০১৯

Facebook Comments

Leave a Reply