কৌস্তভ গঙ্গোপাধ্যায়-এর কবিতা

নক্ষত্র ও মৃন্ময়ী

জবুথুবু সাদা রং ত্বক ভার
মৃত চাঁদ পিছলেছে মহাদেশ
কোনো সুগন্ধী সুরা— হায় ঘোড়া দাবাইয়ের মান কতটা ছড়ালে তুমি গুম্ফা শোওয়াবে

একটা মেয়েকে দেখেছিলাম অজস্র নখ যার কপালে জিসম্‌ জাদু
আদপে ভাঁজ আছে যার সেই তো ভ্রূণ হয়— ভূমধ্য তুলতুলে ডিম

ঘোড়া উঠে বসো, চল্লিশ উড়ুক্কু মাছ ঘুরে গিয়ে পোড়ে পাহাড়ের অলীক লবণ

সাগরেরও সুখ আছে, শূককীট আছে
প্রজাপতি জন্মালে এ’কালে সমুদ্র তুড়ি মেরে ছুঁড়ি হয়ে যাক

জোনাকি শোওয়ালে ধ্যান ভাঙে
উপাসক নগ্নপ্রায় হাতে ধাতুর কুমির, যৌবনকালে কাপালিক শিখেছিল ক’টা দাঁত পোড়ালে
চুল মেডুসার শির

উচ্চৈশ্রবাএল, নারী ও ঘোড়া এসো তুফানী খেলায় মিয়ানো মুড়ি চেটেপুটে গুনি
মুখে নিলে প্রস্রাব সে স্বাদ তারাধাম জিবেগজাতে মাখায়

কী করছি কী দেখছি অথবা ঘোটক সঙ্গম রপ্ত করব বলে দুধে কর্পূর ঘাঁটি
আহ্ আমার শিকড় ভাগ আড়ষ্ট হবে বলে সমাহারে ভালোবাসা আবেগীর বুক

শিকল মকদ্দমা ছুঁলে ঘোড়া বেশী মেয়ে,
খুঁজে পেও জিনের অসুখ…

 

বাঘ গীতা

চলো রমণের গল্প লিখি
আর্য বৃক্ষ তল
দেব আরও দানা, জোড়াতালি দেয় পায়রা সোহাগ
মিথ ভেঙে যায়— পরমদেবতা নেমে আসে
লেহ্য পেয় তালতাল হ্রদ
ধ্বংসসমিধ পার হলে,
ঘুণভাঙা হাসি
মৃতজীবী হয়ে আসে চাঁদের অসুখ৷
এভাবে রাত্রিও নগ্ন, বালিকা ও যুবতী—
মিল খুঁজে পাই কশেরুকা দ্বীপে,
আহারে মাদক মেশা দারুচিনি গ্রাস—
সমভিব্যাহারে খুলে নাও পাতার নিদাঘ

মৃত আসো এই কেন্দ্রে বসতি স্থাপণ করি
নিদারুণ জিভ তোমার—
খুলে পাই মৃতকায়া কোষ, এই বালকবেলা
চিরজীবী বিদেহী শশক

আসো, অই চাঁদে তা দেব ডিমের কুসুম
জানু পাতো, ঢেলে দেব ম্যারিনেট ছাল
এই ভাবে রাত জাগে
হাসি কাঁদি— কামনায় জাগ্রত হলে
স্বীয় রং গিলে নেব,
ঘোড়ার দাবানল পাংশুটে ভ্রম হয়, মৃতামৃত সেবন
কালো ঘোড়া ইন্দ্র বেশক্, যাপনে ঊর্বশী৷
সিকন্দর আগুনে গা দিলে শিখা কেটে নাও জিভের চিরাগ
বসতি ব্যাঘ্র্য মাসে— কেটে যাবে চুড়ির খিলান


Profile_Pic_Kaustav_Gangopadhyay

পরিচিতি: জন্ম – ১২.০৩.১৯৯১। কবিতাপ্রয়াস – বিদ্যালয় জীবন থেকে লেখালেখি শুরু, তারপর এখন অবধি লিখে চলেছেন। ‘দহগ্রাস’ পত্রিকার সম্পাদক। প্রকাশিত বই – ‘আধলেহনের ইতর আপেল’ (২০১৯)। বর্তমানে বসবাস ও কর্মরত আছেন হায়দ্রাবাদে।



Facebook Comments
Advertisements

1 thought on “কৌস্তভ গঙ্গোপাধ্যায়-এর কবিতা Leave a comment

Leave a Reply