সোমনাথ ঘোষাল-র কবিতা

fail

বিকেলের পর

ঘুমন্ত আলোতে চাপ দিয়ে
চলে যাচ্ছে প্রতিটা বিকেল
দাঁত বের করা ঘরবাড়িগুলোর
হাড়মাস বেরিয়ে গেছে কিছুদিন

এইভাবে শবদেহের গায়ে হলুদ
পাখিদের আনাগোনা বেড়েছে
জন্মের উচ্চরণ মনে পড়ে না
গঙ্গার ধারে গেলে
মৃত ব্যক্তির কথা মনে আসে

অবিরাম চাকার মতন
ঘুরতেই থাকে একের পর এক
মাদকের হাসপাতাল
সিগারেট ধরালেই পোড়া গন্ধ
নখ চেটে রাখে

যেন গাছেরাও মৃত্যু সাজিয়ে
আমার অপেক্ষা করছে
তাই বৃষ্টিটাও আজকাল শুকনো থাকার অভিনয় করে

চামড়া

নিজের ছায়ায় পা ঘষলে
মানুষের চামড়া লেগে যায়
জড়তা কান্নার কথায় ডাকে
নিভৃত পোশাকে হানা দেয়
বারোমাসের পেট তার ভেতর
জন্ম নেয় একটা মানচিত্র

পেটের কোনো দেশ নেই
যৌথ খামারে বেড়ে ওঠে
অনন্তকাল যার মুখ ভর্তি
শিশুদের উঁচু নিচু ঢিবি

মাটির তলপেট চেপে
নদীটাও দেহ শূন্য করে
ভেসে আসে হাজারও শূন্য
গাছের শিকড়ে বাঁধা দেয়

মানুষের আজন্ম শূন্যস্থান

তৃতীয় সন্তান

ঈশ্বরের তৃতীয় সন্তান হিসেবে
পাঁচিলের ধারে শ্যাওলা খেয়ে
যে প্রাণীটার মুখে বিচিত্র মানুষের অবয়ব বসে আছে

তাকে আমি বহুকাল চিনি
হাত পা বেঁধে চালান করা
নাগরিক আস্তাকুঁড়ে রাত
নিছক গল্প হয়ে গেলে

যারা দেহ সনাক্ত করতে আসে
তাদের গায়েও সেই
ঈশ্বরের বীর্য লেগে থাকে
তরল আলোছাল সরিয়ে
পাঁচিলের সেই সোঁদা গন্ধে
মুখ ভেঙিয়ে থাকে
সাদাটে ঈশ্বরের লিঙ্গ

তৃতীয় সন্তানের অপেক্ষায়

Facebook Comments

Leave a Reply