সৌরভ দত্ত-র কবিতা

দ্রোহকাল এবং…

(১)

রোজ রোজ ভেবে যাই
এখন কি তবে শোক লিখব
এই যে কেমন প্লাস্টার খসা পোড়ো চেহারা
ঘুনপোকায় খুঁটে খাওয়া মুখের ছবি
একটা নরকের দিকে যাওয়ার পথ
এসব দেখে কি লিখে রাখা উচিৎ শোক

খুব জানতে ইচ্ছে হয়
তরল পদার্থ কতটা প্রয়োজনীয় হয়
কান্নায় গড়িয়ে পড়া জলের
শুকনো দাগ গালে না থাকলে
কিছুতেই কি বোঝা যাবে না
কষ্ট আর ব্যাথাদের ভৌগলিক অবস্থান

জল দাগগুলো বসন্তকাল খুঁজছে
এখন শুধুই নিম্নচাপ
টুপটাপ ঝিরঝির কিংবা ঝমঝম
ঝরে পড়া সব রকম মায়া কি
ডিপ্রেশন লিখে রাখে মাটিতে
গর্ভে ধারণ করার অবশিষ্ট কিছু কি নেই মাটির

আমি তো ঝিমঝিম মেঘে
ছাতার ব্যারিকেড না মানা জলীয় ছোঁয়ায়
প্রেয়সীর আদর খুঁজি
বিক্ষুব্ধ ঠোঁটে শোক নাকি প্রেম
ভাবতে ভাবতে সাম্প্রদায়িক উস্কনিতে ক্রুদ্ধ ঠোঁটে
ঠোঁট রেখে চুম্বনের রহস্যভেদ করি

(২)

মাথার ওপর সাদা সাদা ধোঁয়ার কুণ্ডলী দেখে
ভাবতে পারো মেঘ
আকাশের দায় নেই প্রমাণ করার
ধোঁয়া ওঠে আগুন পোড়ালে
মাটিতে মেশা রক্ত ঘাম
এক চিলতে ঘর
পুড়ে পুড়ে ধোঁয়া ওড়ে মেঘের মত…

এমন ভাবে না ভাবতেও পারো
হাতের তুলিতে আঁকতে পারো মসনদ
আঁকতে পারো আনুগত্যের জলছবি
সাজিয়ে গুছিয়ে ছড়াতেই পারো বাটোয়ারার বিষ
আবছায়ার ব্যবসায় লগ্নি ঢেলে
কিনে নিতে পারো মাথা
যা কিছুই সাজাও
আগুন খেয়ে নেবে যা খাবার তার—

এখন কেউ আর দেখি না কিছু
মেঘের মত ধোঁয়া দেখি
ধোঁয়ার নীচে লুকোনো অভিসন্ধি
ভয়ের ফার্ম হাউসে
হাতের মুঠোয় ধরা নিরুপায় জীবন
পরিকল্পনা মত ছড়ানো ছেটানো
মোড়কে মোড়া দেবতার গ্রাস

বিরুদ্ধতার আগুন রাখা আছে
হৃদযন্ত্রের ঠিক নীচেই
গুমোট আবহাওয়ায় পরিস্থিতি মেপে
ছুঁইয়ে দেব কিছু উৎফুল্ল আশা
বিষাক্ত মাটি অনেকটা পুড়ে
জমে উঠবে ধোঁয়ার মেঘ
তারপর উর্বর মৃত্তিকায় শুরু হবে
একটা নতুন ঘাস জীবন

Facebook Comments

1 thought on “সৌরভ দত্ত-র কবিতা Leave a comment

  1. জীবন অনিশ্চিত, এই আছি এই নেই…অনিশ্চিত বলেই, যতটা কাটালাম জীবন …সেখানে বর্তমান ও অতীত ছাড়া আর কিছু থাকার কথা নয় । ভবিষ্যৎ কালকে দেখব কিনা জানিনা । আমি যখন থাকবো না তখনও বহমান জীবন থাকবে… আমার অন্ত্যজের মধ্যে আমি থাকবো সূক্ষ্ম শরীরে বংশানুক্রমে কিংবা কোন একজনের চৈতন্যে … “বিরুদ্ধতার আগুন রাখা আছে
    হৃদযন্ত্রের ঠিক নীচেই
    গুমোট আবহাওয়ায় পরিস্থিতি মেপে
    ছুঁইয়ে দেব কিছু উৎফুল্ল আশা”
    সৌরভ সব সময়ই নিকট থেকে দূরান্তে (ভবিষ্যতে) বাধাহীন ।

Leave a Reply