সম্পাদকীয়

fail

‘গণতন্ত্র’ শব্দটি খুবই মহার্ঘ্য। রাষ্ট্রিক ও ব্যক্তির জীবন এবং যাপনে বহু ব্যবহৃত একটি শব্দ। প্রাচীন গ্রীস থেকে যার একসময়ে চলা শুরু, গড়াতে গড়াতে আজ কোথায় কীরূপ নিয়ে এসে দাঁড়িয়েছে দেখার জন্য ‘অপরজন’ অন্বেষণ করবে বলে ঠিক করেছিল, ‘মার্চ ২০২১ সংখ্যা’ হাজির একটা জিজ্ঞাসা নিয়ে ‘কেমন আছ প্রজাতন্ত্র’? আমাদের বোধ ও বিবেচনা অনুসারে গণতন্ত্র’র প্রথম সংলাপ ‘কেমন আছ’? এই সংলাপ খাটে সব দেশের জন্য, সব মানুষের জন্য, তাই জিজ্ঞেস করাই যায় ‘কেমন আছ’? জিজ্ঞাসা এক অপরকে, অপর এককে, আর আলাপের এটাই প্রথম ভাঁজ। সেই অর্থে ‘গণতন্ত্র কেমন আছ’ জিজ্ঞাসা, আজ কেন অনেকদিন সার্বজনীন, বিশ্বজনীন।

‘গণতন্ত্র’র শুরু আছে শেষ নেই, চলা আছে থামা নেই। গণতন্ত্র গ্রীক ভাষায় যাকে বলে ‘demokratia’ বা Democracy অর্থাৎ demos অর্থে বোঝায় common people (সাধারণ মানুষ) আর kratos অর্থ strength (শক্তি) সবটা মিলে যার অর্থ দাঁড়ায় ‘সাধারণ মানুষের শক্তি’। অ্যারিস্টটল বলেছিলেন: “Democracy means government of the poor or those less fortunate” এই জায়গাটা ধরেই আব্রাহাম লিঙ্কন সম্ভবত গণতন্ত্রকে সংজ্ঞায়িত করতে গিয়ে ভেবেছিলেন ‘As I would not be a slave, so I must not be a master. This expresses my idea of democracy. Whatever from this, to the extent of difference, is no democracy’ [১ আগস্ট ১৮৫৮] এবং এইভাবেই আব্রাহাম লিঙ্কন পৌঁছেছিলেন একটা সংজ্ঞায় ‘government of the people for the people and by the people’ অর্থাৎ ‘সরকার জনগণের, জনগণের জন্য এবং জনগণের দ্বারা’ নির্বাচিত। মহাত্মা গান্ধী গণতন্ত্রকে যেভাবে দেখেছিলেন: “Democracy, based on the idea that I do, should provide the same opportunities weaker than stronger. Only nonviolence can achieve the goal”. উইনস্টন চার্চিল বলেছিলেন “Democracy is the worst political system, with the exception of all others.’’ কার্ল মার্ক্স বললেন: “All forms of the State have democracy for their truth, and for that reason are false to the extent that they are not democracy.” আপাতত: গণতন্ত্র সম্পর্কে লিঙ্কন ভাবনার পরিসর, গতি প্রকৃতি কেমন দাঁড়িয়েছে, ভারত থেকে আমেরিকা পর্যন্ত গণতান্ত্রিক দেশগুলোতে, তা ভুক্তভোগী মাত্রই নিত্য দেখেন, চেনেন, চেন দিয়ে গলাটা কোথায় বাঁধা বোঝেন। কমবেশি এই ধারাতেই গড়ে ওঠা দ্বন্দ্বগুলোর সমাধান কোন পথে, সে প্রশ্ন জীবনের প্রশ্ন, যাপনের প্রশ্ন – ‘কেমন আছ’ জিজ্ঞেস করলেই যে উত্তর পাওয়া যাবে, প্রশ্নটা তেমন সহজও নয়। আজকে গজালে অবরুদ্ধ পাঞ্জাব অথবা রক্তাক্ত ইয়াঙ্গন অথবা আলেক্সেই নাভালনি’র কারাবরণ অথবা এবং … অথবা … এবং সর্বত্র, সুর ভিন্ন স্বর ভিন্ন, কিন্তু প্রশ্ন এক আছো কি? কেমন আছো গণতন্ত্র?

আসলে গণতন্ত্র আছে কি কোথাও? এই প্রশ্নটা নিয়েই ‘অপরজন’ হাঁটছে … মাটি থেকে রুটি থেকে মননে … আসুন সবাই হাঁটি …

অপরজন
মার্চ, ২০২১

Facebook Comments

Posted in: EDITORIAL, March 2021

Tagged as: ,

Leave a Reply