যুগলবন্দী :: দেবাঞ্জন দাস ও স্বদেশ মিশ্র

fail

[শুধু শারীরিক নয়, এই মানসিক দূরত্বের সময় আমরা চেয়েছিলাম শিল্পীরা কাছাকাছি আসুক। তাই এই উদ্যোগ – যুগলবন্দী। আলাদা আলাদা মাধ্যমে কাজ করা শিল্পীরা একজোট হয়েছেন। সৃষ্টি হয়েছে কবিতা থেকে ছবি বা ছবি থেকে কবিতা। এ’ভাবেই এ’ আয়োজনে কবি দেবাঞ্জন দাস ও শিল্পী স্বদেশ মিশ্র।]


কবি পরিচিতি

দেবাঞ্জন দাস

দেবাঞ্জন পশ্চিমবঙ্গের শূন্য দশকের কবি। জন্মসাল ১৯৮০। ‘বৈখরী ভাষ্য’, ‘ইন্ডিয়ারি’-এর মত পত্রিকা-ওয়েবজিন সম্পাদনার সাথে ওতপ্রোত জড়িত ছিলেন। বর্তমানে ‘অপরজন’ পত্রিকার কার্যকারী সম্পাদক। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের চলচ্চিত্রবিদ্যা বিভাগের এই প্রাক্তনী কলকাতার দৈনিক সংবাদপত্রে নিয়মিত চলচ্চিত্র বিষয়ক কলাম লিখেছেন, স্বল্পদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্র এবং তথ্যচিত্র পরিচালনা করেছেন। চলচ্চিত্র ও কবিতার আন্তর্সম্পর্ক নিয়ে নিয়মিত লিখেছেন পত্রপত্রিকায়।
প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ: ‘চেনা আনফ্রেম’ (২০০৯, বৈখরী ভাষ্য প্রকাশনী, কলকাতা), ‘বিল্লিবাদল’ (২০১৪, বৈখরী ভাষ্য প্রকাশনী, কলকাতা)।

 

আগামীর নির্বাচন


দেবাঞ্জন দাস


শব্দের মাঝে কেবলই ১৪০ জেগে উঠছে
গুলি চলে, বোমা ফাটে
আমি নিয়ম মাফিক তাকে চা-বিস্কুট দিই
তবু ধারা-উপধারা ছেড়ে এগোয় না শব্দ

ঘুমোতে যাই, ঘুম ভাঙ্গে
বসে দেখি—
হাঁটতে হাঁটতে কবিতা অর্ধেক রাত পেরিয়েছে
বোমায় ফেটে যাওয়া সন্ধ্যা নিয়ে
শব্দরা আকাশে উঠেছে
আমাদের গেরস্থালীর তাঁবুতে জাবর কাটছে
নির্লিপ্ত ষাঁড়
গুছিয়ে রাখা হচ্ছে স্প্লিন্টার
বুকের গুলি
আগামীর নির্বাচন…

ঠোঁটে অভিযোগ নিয়ে
আমি আলোর পাখি হতে চাইনি
পোস্টমর্টেম ছুঁয়ে ভালোবাসতে চাইনি রাষ্ট্রকে

জানলার শিক ধরে দাঁড়িয়ে থাকা এই জনপদে
আলো-আঁধারের প্রীতিভোজে বসে আছি
পদ্মপাতার টলটলে জলে
সূর্য হাজিরা দেবে

 

 


শিল্পী পরিচিতি

স্বদেশ মিশ্র

জন্ম ১৯৮৬ সাল, কলকাতায় বেড়ে ওঠা এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন এ স্নাতক। স্কুল ও কলেজ জীবন থেকে লেখালিখি করা, সাহিত্যকর্মী হিসাবে আত্মপ্রকাশ। ২০০৯ ও ২০২০ তে ‘লাল পানশালা’ ও ‘হে মৃগকায়’ নামক দুটি কাব্যগ্রন্থ রচনা। বর্তমানে ভাষা, চিত্র, দৃশ্য, সঙ্গীত ও গীতরচনাসহ বিভিন্ন শিল্পমাধ্যমের মধ্যে দিয়ে ভাবনাপ্রকাশ এবং কাজ। ভালো লাগা ভ্রমণ, প্রকৃতি, রান্না। চর্চা ও গবেষণার বিষয় চর্যাপদ ও বৌদ্ধবাদ।

বড় ক’রে দেখার জন্য ছবিটিতে ক্লিক করুন

Facebook Comments

Leave a Reply