যুগলবন্দী :: সম্বুদ্ধ ঘোষ ও শ্রেষ্ঠা মজুমদার

fail

[শুধু শারীরিক নয়, এই মানসিক দূরত্বের সময় আমরা চেয়েছিলাম শিল্পীরা কাছাকাছি আসুক। তাই এই উদ্যোগ – যুগলবন্দী। আলাদা আলাদা মাধ্যমে কাজ করা শিল্পীরা একজোট হয়েছেন। সৃষ্টি হয়েছে কবিতা থেকে ছবি বা ছবি থেকে কবিতা। এ’ভাবেই এ’ আয়োজনে কবি সম্বুদ্ধ ঘোষ ও শিল্পী শ্রেষ্ঠা মজুমদার।]


কবি পরিচিতি

সম্বুদ্ধ ঘোষ

জন্ম ১৯৮৮, হাওড়া। শূন্য দশকের শেষদিক থেকে লেখালিখি শুরু করেন। মূলত কবিতাই লিখেছেন দশদিশি, প্রতিষেধক, ভাষানগর, যাপনচিত্র, প্রহেলিকা, হপ্তাক কাচরা, নতুন কবিতা, বাক, এগনি অপেরা, সৌতি ইত্যাদি লিটল ম্যাগাজিন ও ওয়েবজিনে।
এযাবৎ প্রকাশিত বই –
‘এলাচ অপেরা থেকে’ সিরিজের ‘অন্য উপদ্বীপ’ (২০১২ / প্রতিষেধক)
‘সামার ল্যাসি’ (২০১৭ / তৃতীয় পরিসর)
‘অলীক পাতাবাহার কাল’ (২০১৯ / হাওয়াকল)

হৃদয় তুমি এরোড্রোম

সম্বুদ্ধ ঘোষ

এতগুলি প্রতিস্পর্ধী বোধ একে অপরের সাথে ঝাপটায় ডানা
তোমার পাতাটি জুড়ে স্বরের স্য-ডাস্ট, উচ্চকিত চেরাইকল,
জোছনায় আতপ্ত দুপুরে ঊষাকালের কিছু প্রতিদ্বন্দ্বী হাঁস
সকালের বুলেটিন হয়ে এলো উদ্দেশ্যবিহীন যেন

নর্মমিনার ঘেঁষে পৃথুলা ক্যাশুরিনা ঢাকে নীলিমার শামিয়ানা,
মুখ তোলে, ছিঁড়ে ফ্যালে, ডানা মেলে বাতাস কাটে বিহ্বল
“অতিক্রান্ত সহস্র ঋতু আর এই খাদ্য-খাদকের বারোমাস
ফেলে কতদূর যাব আর?”-যথাবিধ জিজ্ঞাসা মধুরেণ

তোমাকে ঘড়ির ঘণ্টার মতো বাজাল ইমনে,
ডৌল ফলখানি ঝরে গেল ইন্দ্রিয়বনে;
প্রাণবন্তের মত আকাশ তাকায়।

তারপর পেয়েছ তুমি অযুত একর, অব্যবহারের সাঁকো,
উপজাতীয়ের জঙ্গল বলে “নিরন্ন প্রজাদের পাশে থেকো!”
নিঃসন্দেহ পারবে হতে শব্দহীন মূর্ছায়।

এভাবে জ্যা-মুক্ত হলে ফিরতে পারবে কিনা,
মাঝে মাঝে হয়ে যায় এ ভুলও—
“আফিম বীজের চেয়ে পরিণতিহীন লক্ষ্যে
এই দেশে উড়ে যায় তুলো”।


শিল্পী পরিচিতি

শ্রেষ্ঠা মজুমদার

জন্ম ১৯৯৯ সাল, আগরতলার বাসিন্দা, বি.টেক পাঠরত। লেখালিখি করতে এবং ছবি আঁকতে ভালো লাগে। স্থানীয় দু’টি প্রোডাকশন হাউসের সাথে যুক্ত। আর ভালো লাগে দুনিয়াকে অবজার্ভ করতে। মেটাফর দিয়ে সব বর্ণনা করে ফেলি। দুনিয়াতে যে যেমনই হোক না কেন মানি যে সহৃদয়তা, দয়াশীলতার মধ্যে অভাবনীয় এক জোর আছে।

বড় ক’রে দেখার জন্য ছবিটিতে ক্লিক করুন

Facebook Comments

Leave a Reply